শুক্রবার, মে ৩১, ২০২৪

চাঁপাইনবাবগঞ্জ চেম্বারে ভারতীয় রুপী ও বাংলাদেশী টাকায় আমদানী-রপ্তানী বাড়াতে ভারতের সহকারী হাইকমিশনা

  • জাকির হোসেন পিংকু,
  • ২০২৪-০৩-০৪ ১৮:৪৩:৩৭

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি:
চাঁপাইনবাবগঞ্জ  চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রির আয়োজনে ভারতীয় রুপী ও বাংলাধেশী টাকায় দু’দেশের মধ্যে আমদানী-রপ্তানী বাড়াতে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার(৪ মার্চ) দুপুরে চাঁপাইনবাবগঞ্জ  চেম্বার ভবনে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন চেম্বার সভাপতি আব্দুল ওয়াহেদ। প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন রাজশাহীতে নিযুক্ত ভারতের সহকারী হাইকমিশনার মনোজ কুমার। বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন ষ্টেট ব্যাংব অব ইন্ডিয়া,ঢাকার সিইও সুমন্ত ঘোষ। এছাড়াও বক্তব্য দেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের শীর্ষ ব্যবসায়ীরা। তাঁরা এখন পর্যন্ত এ ধরণের বানিজ্যর অসুবিধা নিয়ে কথা বলেন। তাঁরা দু’দেশের বানিজ্যের বিশাল ফারাক তুলে ধরেন। তাঁরা চাঁপাইনবাবগঞ্জের সোনামসজিদ স্থলবন্দর,রহনপুর রেলবন্দর এবং সম্প্রতি চালু হওয়া চাঁপাইনবাবগঞ্জ ঘেষা রাজশাহীর সুলতানগঞ্জ ও ভারতের ময়া নৌবন্দরের বিভিন্ন  অসুবিধা তুলে ধরে তা দূর করতে ভারতীয় কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। তাঁরা ভারতের ভিসা প্রাপ্তির  ও ভারতে প্রবেশের বিভিন্ন অসুবিধা ও জটিলতা নিয়েও কথা বলেন।
এদিকে সভার আগে চেম্বারের আয়োজনে এ বছর সমাজসেবায় একুশে পদকপ্রাপ্ত চাঁপাইনবাবগঞ্জের প্রত্যন্ত ভোলাহাট উপজেলার দই বিক্রেতা মো.জিয়াউল হককে ভারতের সহকারী হাইকমিশনারের  উপস্থিতিতে সংবর্ধণা দেয়া হয়।  জিয়াউল হক দই বিক্রির টাকায় বই কিনে সে বই শিক্ষার্থী ও আগ্রহীদের পড়তে  দিয়ে  এবং বিলিয়ে সমাজসেবায় অসামাণ্য অবদান রেখেছেন। সংবর্ধণায় ভারতের সহকারী হাইকমিশনার জিয়াউল হককে  তাঁর প্রতিষ্ঠিত পাঠাগারের জন্য ভবন  নির্মাণ ও আসবাবপত্র কিনে দেবার প্রস্তার দেন। তিনি জিয়াউল হককে গর্ব বলে উল্লেখ করেন। তিনি জিয়াউলের প্রশংসা করে বলেন,তাঁর কাজ সকলকে অনুপ্রাণিত করছে। এ সময় জিয়াউল হক চেম্বার ও ভারতের সহকারী হাইকমিশনারকে ধণ্যবাদ জানান। ৯১ বছর বয়সী জিয়াউল হক বলেন,তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞ। গত ২০’ফেব্রæয়ারী প্রধানমন্ত্রীর নিকট থেকে পদক পেয়ে তিনি যেন তরুণ হয়ে গেছেন। এরপর থেকে সকলের ভালবাসায় তিনি সিক্ত।
সভায় ষ্টেট ব্যাংব অব ইন্ডিয়া,ঢাকার সিইও বলেন, ডলারের পরিবের্ত ২০২৩ সালের আগষ্ট মাস হতে রুপী ও টাকায় দু’দেশের মধ্যে সীমিত পর্যায়ে আমাদানী-রপ্তানী শুরু হয়েছে। এ ধরণের বানিজ্য বৃদ্ধির রুবিধা তিনি তুলে ধরেন। সহকারী হাইকমিশনার বলেন, এ ব্যাপারে দু’দেশের সরকার কাজ করছে।দু’দেশের সরকার চাইলে ভবিষ্যতে এ ধরণের বানিজ্য বাড়বে। তিনি ভারতে ভাংলাদেশের রপ্তানী বাড়াতে ব্যবসায়ীদের প্রতি অনুরোধ জানান। তিনি ভিসা জটিলতা নিরসনে ভারত প্রতিনিয়ত কাজ করছে বলেও জানান। 
 

 


এ জাতীয় আরো খবর